সুমির সাথে মাশরাফির এক যুগ

সুমির সাথে মাশরাফির এক যুগ

নিউজডেস্ক২৪: দেখতে দেখতে ১২টি বছর কাটিয়ে দিলেন ‘নড়াইল এক্সপ্রেস’ মাশরাফি বিন মর্তুজা দম্পতি। দাম্পত্য জীবনে দুই সন্তানের জনক-জননী তারা। স্ত্রী ও সন্তানদের নিয়ে সুখের সংসার তাদের। ২০০৬ সালের ০৭ সেপ্টেম্বর নড়াইল চিত্রাপাড়ের মেয়ে সুমনা হক সুমিকে বিয়ে করেন লড়াকু মাশরাফি। নড়াইল শহরের রূপগঞ্জে কমিউনিটি সেন্টারে তাদের বিয়ে সম্পন্ন হয়। পরের দিন ৮ সেপ্টেম্বর চিত্রা নদীর কোল ঘেঁষে গড়ে ওঠা চিত্রা রিসোর্টে বৌভাত অনুষ্ঠিত হয়।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে বৃহস্পতিবার (৬ সেপ্টেম্বর) রাত ১০টার পর থেকেই মাশরাফি দম্পতির জন্য শুভ কামনা করেন তার ভক্তরা। শেখ নয়ন নামে এক ভক্ত ফেসবুকে লিখেছেন, শুভ বিবাহবার্ষিকী ভাই-ভাবি।

এমবিএ লিংকন লিখেছেন- নড়াইল তথা বাংলার ১৭ কোটি মানুষের মধ্যমনি ও গর্ব, ‘নড়াইল এক্সপ্রেস’ মাশরাফি বিন মর্তুজা কৌশিকের শুভ বিবাহবার্ষিকী। শুভ হোক আগামীর দিনগুলি। হিরা সারথীর মন্তব্য- হ্যাপি অ্যানিভারস্যারি বন্ধু, অনেক অনেক ভালো থাকো সবসময়।

এছাড়া ফেসবুকবন্ধুরা মাশরাফির বিয়ের দিনের ছবিসহ তার স্ত্রী ও সন্তানদের ছবিও পোস্ট করেছেন। বাংলাদেশ ওয়ানডে ক্রিকেট দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজার জন্য দোয়াসহ ভালো ক্রিকেট খেলার প্রত্যশা করেন তার সকল ভক্তরা।

এশিয়া কাপকে সামনে রেখে ৬ আগস্ট বিসিবির আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে হাজির উপস্থিত ছিলেন মাশরাফি। কথা বলার এক পর্যায়ে বিবাহবার্ষিকী এবং সংসার নিয়ে কথা উঠলে অধিনায়ক বলেন, ক্রিকেটের সঙ্গে সংসার! আসলে যারা চাকরি করছে তাদেরও তো সংসার করছে। এখানে কঠিন কিছু নেই। সংসার জীবনের পুরোটাই হচ্ছে একজন আরেকজনকে বোঝাপড়ার বিষয়। আমার তো মনে হয় চাকরিজীবীদের চেয়ে ক্রিকেটারদের সংসার করাটা আরও সহজ। আমাদের অনেক বিরতি থাকে, সুযোগ থাকে পরিবারকে নিয়ে সফর করার। এটা একজন চাকরিজীবী বা অন্যান্য পেশায় থাকে না। এটা যুগলদের জন্য আরও মজার, খেলাধুলা আসলে বন্ধনটা আরও শক্ত করে।