সেদিন আমার বেঁচে থাকার কথা ছিলো না- নাট্যনির্মাতা শেখ রুনা

সেদিন আমার বেঁচে থাকার কথা ছিলো না- নাট্যনির্মাতা শেখ রুনা

নিউজডেস্ক২৪: আজ ৮ই সেপ্টেম্বর ২০১৮। ঠিক এই দিনে ২০১৭ সালে খুলনার রূপসা ব্রীজ থেকে ছেড়ে আসার পর ফরিদপুর স্যূর্যনগর (ভাঙ্গ) স্থানে দূর্ঘনাটি ঘটে। সেই বিশাল দূর্ঘটনা থেকে বেঁচে যান তিনি। সেইদিন মাইক্রোবাসে ১৫জন যাত্রীর মধ্যে তিনি এবং মনজুরুল করিম শামীম নামে আরেক ব্যাক্তি বেঁচে যান। এতো কিছুর পর আজও এই মিডিয়া ছাড়তে পারেননি তিনি। এমনটি বলছিলেন, বর্তমান সময়ের অভিনেত্রী, টিভি নাট্যকার, চ্যানেল আই ও এটিএন বাংলায় ফ্রিল্যান্স ডিরেক্টর হিসেবে অসংখ্য নাটকের নাট্যনির্মাতা শেখ রুনা।

দূর্ঘটনা নিয়ে নাট্য নির্মাতা শেখ রুনা বলেন, ‘আসলেই সেদিন আমার বেঁচে থাকার কোন কথা ছিলো না। সেদিন সকাল ১০ টায় কাজের ব্যপারে এটিএন বাংলায় চেয়ারম্যানের সাথে ঢাকার উদ্দ্যোশে রওনা দেই। ঢাকায় আসার সময় প্রতিবারের মত মাইক্রোতে একই স্থানে বসার চেষ্টা করলেও সেদিন এক ছোট্ট শিশুর বাবার আকুতি শুনে ড্রাইভারের পিছনের সিটে বসতে হয়েছি। মাঝপথে আমি বুঝতে পারছিলাম মাইক্রোটি খুব একটা অস্বাভাবিক অবস্থায় চলছিলো। কিন্তু আমি ফেসবুকে এক বন্ধুর সাথে চ্যাটিং করায় ড্রাইভারকে সাবধান করব করব ভাবতেই সেইদিনে দূর্ঘনাটি ঘটেছিলো। এরপর আর কিছু মনে ছিলো না। তবে আমার জ্ঞান ফেরার পর জানতে পারি আমি আর মনজুরুল করিম শামীম ছাড়া আর কেউ বেঁচে নেই। সত্যি আমার সেই দিনে কথা ভেবে ভীষণ মন খারাপ। হয়তো আল্লাহর অশেষ মেহেরবানীতেই আর একটি নতুন জীবন ফিরে পেয়েছি।

তিনি আরও বলেন, দূর্ঘনার পর অনেকদিন আমাকে অনেক চিকিৎসা নিতে হয়েছে। কিন্তু পরবর্ত্তিতে এনটিএন বাংলায় ফ্রিল্যান্সে কাজ করলেও তেমন কোন সুযোগ পায়নি। তবে ‘রিজেন্ট হাসপাতাল’ এর এমডি মোঃ শাহেদ ভাইয়ের কাছে সত্যি সারা জীবন কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। তার সার্বিক সহযোগিতার জন্য। রোহিঙ্গাদের নিয়ে একটি ফ্রি ক্যাম্পেইনে ‘রিজেন্ট হাসপাতাল’ এর ফেসবুকে পেজে একটি পোষ্ট দেখার পর আমি মোঃ শাহেদ ভাইয়ের ইনবক্সে সেদিনের দূর্ঘটনার একটি ছবি পাঠাই। পরে হাসপাতাল থেকে আমাকে এতো সুযোগ সুবিধা প্রদান করেন, যা কোনদিন ভোলার মত নয়।

হয়তো সবার ভালোবাসায় আজ আমি বেঁচে আছি। সত্যি বলতে কি; আমি সেই ছোট বেলা থেকেই মিডিয়া ভক্ত। এই মিডিয়ার জন্য জীবনে অনেক কিছু হারিয়েছি। সবাই আমার জন্য অনেক দোয়া করবেন। সামনে যেন আরো অনেক ভালো নাটক নির্মাণ করতে পারি। নতুন জীবনের জন্য সবার কাছে কৃতজ্ঞ এবং মহান আল্লাহতায়ালার অশেষ মেহেরবানিতে আজ আমি সুস্থ।