ঢাকা, সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ | ০৯ আশ্বিন ১৪২৫ | ১৩ মহররম ১৪৪০

ভক্তদের ভালোবাসা নিয়েই বিদায় নিতে চাই: পপি

ভক্তদের ভালোবাসা নিয়েই বিদায় নিতে চাই: পপি

নিউজডেস্ক২৪: ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই ভক্তদের কাছে থেকে প্রচুর ভালোবাসা পেয়েছি। এখনও তারা আমাকে ভালোবেসে যাচ্ছেন। আজকে আমার জন্মদিন উপলক্ষে ‘পপি ফ্যান ক্লাবে’র সদস্যরা দিনব্যাপী আমার অভিনীত সিনেমা ও গান দেখাবে। নিজেদের টাকা খরচ করে তারা আমাকে ভালোবেসে এত কিছু করছেন এটাই আমার জীবনে সবচেয়ে বড় পাওয়া। ভক্তদের ভালোবাসার কারণেই আজকে আমি পপি হতে পেরেছি। আর এই ভালোবাসা নিয়েই যেন বিদায় নিতে পারি।

ঢাকাই ছবির অনিন্দ্য সুন্দরী এই নায়িকার জন্মদিন আজ ১০ সেপ্টেম্বর। দিনটিতে বিশেষ কোনও আয়োজন রাখছেন না তিনি। জন্মদিনে একটি এতিমখানায় বাচ্চাদের সঙ্গে সময় দেবেন ও তাদের মাঝে উন্নত খাবার বিতরণ করবেন।

পপির জন্মস্থান খুলনার শিববাড়ী। মুন্নুজান স্কুলে পড়াশোনাকালীন ১৯৯৫ সালে লাক্স আনন্দ বিচিত্রা ফটোসুন্দরী হিসেবে মিডিয়ায় তার অভিষেক ঘটে। চলচ্চিত্রে আসার আগে তিনি শহীদুল হক খান পরিচালিত ‘নায়ক’ নাটকে চিত্র নায়ক ইলিয়াস কাঞ্চনের বিপরীতে প্রথম অভিনয় করেন।

জন্মদিনে পপির চাওয়া আগামীদিনেও দর্শকদের জন্য কিছু ভালো চলচ্চিত্র উপহার দেয়ার। এমন কাজ করতে চান যা তাকে মানুষের মাঝে দীর্ঘদিন বাঁচিয়ে রাখবে।

১৯৯৭ সালে ‘কুলি’ছবির মাধ্যমে ঢাকাই চলচ্চিত্রে আবির্ভাব পপির। মনতাজুর রহমান আকবর পরিচালিত ছবিতে তার বিপরীতে ছিলেন জনপ্রিয় নায়ক ওমর সানি। প্রথম ছবি ব্যবসা সফল হওয়াতে আর পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি তাকে।

এরপর ১৯৯৮ সালে নায়ক রিয়াজের বিপরীতে ‘বিদ্রোহ চারিদিকে’, ১৯৯৯ সালে মান্নার বিপরীতে ‘কে আমার বাবা’ ও ‘লাল বাদশা’, গার্মেন্টস কন্যাসহ বহু ব্যবসা সফল সিনেমা উপহার দিয়েছেন।

শুধু ব্যবসা সফল ছবিই নয় ‘কারাগার’ (২০০৩), ‘মেঘের কোলে রোদ’ (২০০৮) ও ‘গঙ্গাযাত্রা’ (২০০৯) এই তিনটি চলচ্চিত্রে ভালো অভিনয়ের স্বীকৃতি স্বরূপ শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী হিসেবে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান তিনি।