পাকিস্তানকে হারানো অসম্ভব নয়: স্টিভস রোডস

পাকিস্তানকে হারানো অসম্ভব নয়: স্টিভস রোডস

নিউজডেস্ক২৪: আজ সকাল ১০টা থেকে দুপুর পর্যন্ত দুবাইয়ের আইসিসি ক্রিকেট একাডেমীতে অনুশীলন সেরেছেন সাকিবরা। আগের দিন জানানো হয়েছিল, অনুশীলন শেষে কথা বলবেন অধিনায়ক মাশরাফি। কিন্তু কেন যেন সেটা পরিবর্তন হলো, সংবাদ সম্মেলনে আসলেন কোচ স্টিভস রোডস।

দুপুর ১২টায়, কনফারেন্স রুমে হাসিখুশি মুখ নিয়ে প্রবেশ করেই বললেন, ‘সবাই রেডি?’ কাল পাকিস্তানের সঙ্গে ফাইনালে ওঠার লড়াই। সমীকরণ একটাই, যে দল জিতবে ভারতের সঙ্গে ফাইনাল খেলবে তারাই।

আবুধাবি স্টেডিয়াম পাকিস্তানের তিন হোম গ্রাউন্ডের একটি। এই কন্ডিশনে তারা অভ্যস্ত। আর বাংলাদেশ দল এই প্রথম খেলতে এসেছে মরুভূমির তপ্ত গরমের মধ্যে। কাল কঠিন চ্যালেঞ্জ বাংলাদেশের জন্য। সেই চ্যালেঞ্জের জন্য দল কতটা প্রস্তুত কালই বোঝা যাবে, তবে কোচ কিন্তু ফুরফুরে। তিনি তো মাঠে গিয়ে খেলে দিয়ে আসবেন না, কিন্তু তার পরও কালকের ডু অর ডাই লড়াই অনেকটাই নির্ভার মনে হলো স্টিভস রোডসকে।

কিন্তু দল কতটা নির্ভার?পাকিস্তানের সঙ্গে চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় কতটা প্রস্তুত মাশরাফিরা? কোচ বললেন,‘ হ্যাঁ, এই ম্যাচটা আমাদের জন্য চ্যালেঞ্জ। পাকিস্তান নিজেদের দিনে যে কোনো কিছু করে ফেলতে পারে। চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে তারা দুর্দান্ত খেলেছে। যদিও সেই মানে তারা এখানে খেলতে পারছে না। তবে পাকিস্তানকে নিয়ে কোনো কিছুই বল যায় না। তারা খুবই শক্তিশালী দল। নির্দিষ্ট দিনে যে কোনো কিছু করে ফেলতে পারে। তবে আমার মনে হয় পাকিস্তানকে হারিয়ে ফাইনালে খেলা অসম্ভব কিছু নয়।’

দলের ব্যাটিং লাইন এখনও চিন্তার কারণ। টপ অর্ডারের ধারাবাহিকতা নেই। সবচেয়ে বড় চিন্তা ওপেনিংয়ে। টানা ব্যর্থ শান্তর জায়গায় সৌম্য সম্ভবত ফিরছেন। সৌম্য ফিরলে তো ইমরুল নিচেই ব্যাট করবেন। হয়তো তিনে। তবে এসব বিষয় এড়িয়ে যেতে চাইলেন কোচ।

বললেন,‘ হ্যাঁ, টপ অর্ডার সেভাবে রান করছে না। গত ম্যাচে ইমরুল- মাহমুদউল্লাহ দারুণ করেছে। হ্যাঁ, সৌম্য আজ পুরো সময় অনুশীলন করেছে। সে ঠিক আছে। একাদশ কি হবে, সেটা অধিনায়কের সঙ্গে আলোচনা করে ঠিক করা হবে।’

ইমরুল-সৌম্যকে ডেকে পাঠানোর ব্যাপারটা জানতেন না অধিনায়ক মাশরাফি। কোচ হিসেবে অন্তত স্টিভস রোডসের তো জানার কথা। তিনি কি জানতেন? এ প্রশ্নটাও এড়িয়ে যান কোচ। তবে ইমরুলের আলাদা প্রশংসা করে রোডস বলেন,‘ আগের কটা দিন অনেক পরিশ্রম করতে হয়েছে। অনেক জার্নির মধ্যে ছিল সে। ৪০ডিগ্রী তাপমাত্রার মধ্যে যেভাবে ব্যাটিং করেছে, তাতে ওকে ক্রেডিট দিতেই হবে।’

পাকিস্তান ম্যাচে দুই চিন্তা বাংলাদেশের। ওদের আছে অত্যন্ত দ্রুত গতির বোলিং ও শাদাব খানের মতো লেগ স্পিনার। আফগানিস্তানের রশিদ খানকে খেলতে অনেক ঘাম ঝরাতে হয়েছে ব্যাটসম্যানদের। শাদাবও এই মুহূর্তে বিশ্বের অন্যতম সেরা লেগ স্পিনার।

কোচ অবশ্য অতটা চিন্তিত নন এ নিয়ে। বলেছেন,‘ হ্যাঁ, পাকিস্তানের অত্যন্ত দ্রুতগতির পেসার আছে। তবে আবুধাবির উইকেট কিছুটা স্লো। বল ঠিকঠাক ব্যাটে আসে। ব্যাটিং উইকেট। তাই ওখানে পেস বোলিং নিয়ে খুব একটা চিন্তার কারণ আছে বলে মনে হয় না। হ্যাঁ, রশিদ শাদাব দুজনই অত্যন্ত উঁচু মানের স্পিনার। তবে গত ম্যাচে মাহমুদউল্লাহ- ইমরুল অসাধারণ খেলেছে রশিদের বিপক্ষে। কাল দেখা যাক।’