মেয়েদের বিকিনি পরিয়ে সেক্সি স্টাইলে ছবি তুলতো: ইমরান

মেয়েদের বিকিনি পরিয়ে সেক্সি স্টাইলে ছবি তুলতো: ইমরান

নিউজডেস্ক২৪: সিনেপর্দার আড়ালেই ছিলেন ইমরান খান। বলিউডে হিট ডেবিউ করলেও পরবর্তীকালে তেমন হিট ছবি দর্শককে দিতে পারেননি। হাতে গোনা কয়েকটি ছবি করার পরই টিনসেল থেকে নিজেকে গুটিয়ে নিয়েছেন ইমরান খান। অ্যাওয়ার্ড শোতেও দেখা যায় না তাকে।

তবে তাতে ইমরানের কোনও আক্ষেপ নেই। স্ত্রী এবং মেয়েকে নিয়ে নিজের মতোই রয়েছেন। কোনও বিষয় তেমন মন্তব্য না করলেও #MeToo নিয়ে মুখ খুলতে বাধ্য হলেন ‘জানে তু ইয়া জানে না’র অভিনেতা।

সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে ইমরান জানিয়েছেন, আমি তখন ইন্ডাস্ট্রিতে একেবারে নতুন। একজন পরিচালক একটা ফিল্মের জন্য মুখ্য অভিনেত্রীদের অডিশন করছিলেন। প্রত্যেকটা মেয়েদের বিকিনি পরিয়ে সেক্সি পোজ দিতে বলছিলেন। ফোটোশ্যুটগুলো কোনও কস্টিউম টেস্ট বা এবং মার্কেটিংয়ের জন্যও ছিল না। সেই ফোটোগ্রাফগুলো থাকতো পরিচালকের ল্যাপটপে। অডিশন থেকে তিনজন শর্টলিস্টেড অভিনেত্রীদের সেই ছবিগুলো দেখিয়ে আলোচনা করা হচ্ছিল। কোনও দরকারই ছিল না বিকিনি পরিয়ে শ্যুট করার তাও নিজের নোংরা মনোভাবের জন্য এমনটা করেছিলেন তিনি। ক্ষমাতশালী ব্যক্তি হয়ে নিজের ক্ষমতার দুর্ব্যবহার করেন।

তার সামনে ঘটা কিছু ঘটনা ছাড়াও তিনি বিকাশ বেহেলের বিরুদ্ধেও কথা বলেছেন। পরিচালক বিকাশের বিরুদ্ধে এর আগে কঙ্গনা রানাওয়াত এবং বেশ কয়েকজন অভিনেত্রী যৌন হেনস্থার অভিযোগ এনেছেন। অভিনেতা ইমরানও সেই অভিযোগগুলো সত্যি বলেই অনুমান করছেন।

তিনি জানান, সবাই বিকাশ বেহেলের সম্বন্ধে কথা বলছে। আমিও অনেক কিছুই শুনেছি তার ব্যাপারে। এক বছর আগেও একটি মেয়ে বিকাশের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনেছিল। ইন্ডাস্ট্রির সকলেই জানতো। কিন্তু তাতে বিকাশের কিছু যায়ই আসে না। পাঁচ-ছয় মাস আগে আমি তাকে একটা পার্টিতে দেখেছিলাম। সেখানে তিনি বেশ হেসেই সবার সঙ্গে কথা বলছেন। দেখা করছেন।

ইমরান বলেন, বাকিরাও বেশ ভালো ভাবে কথা বলছে বিকাশের সঙ্গে। কেউ তার ব্যাপারটা নিয়ে কথা বলছে না। আমি যখন ওই প্রসঙ্গটা তুললাম। দেখলাম আমি একমাত্র সেখানে আলাদা। এগুলো করেও কী করে সবাই কীরকম সাধারণ ভাবেই ঘুরে বেরায়।

তিনি আরও জানান, অনেক বড় বড় তারকারা মহিলাদের হেনস্থা করেন। ইমরান তাদের নাম জানলেও বলতে পারবেন না। কারণ তারা এতটাই প্রভাবশালী যে ইমরানকে কেউ বিশ্বাস করবে না। কিন্তু বলিউডে #MeToo মুভমেন্ট শুরু হওয়ায় তিনি বেশ খুশি।