বদহজম দূর করার ঘরোয়া উপায়!

বদহজম দূর করার ঘরোয়া উপায়!

নিউজডেস্ক২৪: খাওয়া শেষ হবার পরে প্রচুর মানুষ ভোগেন বদহজমে। অস্বস্তিকর এই সমস্যা থেকে আপনাকে মুক্তি দিতে পারে আপনার ঘরোয়া কিছু উপাদান। চলুন দেখে নিই ঘরোয়া প্রতিকারগুলোঃ

১। পুদিনা চা অথবা ক্যামোমাইল চা

গরম চা পান করাটা এমনিতেই অনেকের জন্য আরামদায়ক একটা অনুভূতি। পুদিনা অথবা ক্যামোমাইল চা আরও বেশি উপকারী। এই দুই চায়ের যে কোনো একটি বা দুইয়ের মিশ্রণ নিয়ে একটু একটু করে চুমুক দিন দেখবেন বদহজম দূর হয়ে গেছে।

২। অ্যালোভেরা

ত্বকের বা চুলের যত্নে, পোড়া ত্বক উপশমে অ্যালোভেরা ব্যবহার হয় কিন্তু আপনি এটা বদহজম দূর করতেও খেতে পারেন বা এর শরবত পান করতে পারেন।

৩। চুইং গাম

সবার বাসাতেই খুঁজলে পাওয়া যাবে চুইং গাম। বাসায় না থাকলেও চট করে দোকান থেকে কিনে আনা যায়। চুইং গাম চিবানোর ফলে ইসোফ্যাগাল এবং ফ্যারিঞ্জিয়াল পিএইচ বাড়ে অর্থাৎ এসিড কমে।

৪। খাওয়ার আগে পান করুন এটি

১ গ্লাস ঈষদুষ্ণ পানিতে ১ চা চামচ মধু এবং এক চা চামচ অ্যাপল সাইডার ভিনেগার মিশিয়ে নিন। দাওয়াতে খাওয়ার ৩০ মিনিট আগে এটি পান করুন। বদহজমের সমস্যায় ভুগতে হবে না।

৫। বেকিং সোডা

এক গ্লাস পানিতে এক চা চামচ বেকিং সোডা গুলে নিন। এতে অল্প একটু লেবু চিপে দিন যাতে ওপর থেকে অতিরিক্ত গ্যাস চলে যায়। এরপর অল্প অল্প করে পান করুন। এতে বদহজমের কারণ পেটের অ্যাসিড কমে আসবে। তবে এই উপায়টি ঘন ঘন ব্যবহার না করাই ভালো।

৬। কাত হয়ে ঘুমান

অনেকেরই বদহজম হয় ঘুমের মাঝে। বিশেষ করে খাওয়ার পর পরই যদি ঘুমাতে যান তাহলে বদহজম হবার সম্ভাবনা বেশি থাকে। এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে কাত হয়ে ঘুমান। বাম কাত হয়ে ঘুমান তাহলে ঘুমের মাঝে বদহজম হবার সম্ভাবনা কম থাকবে।

৭।। টক দই

অনেকেই হজমের সমস্যার কারনে দুধ খেতে পারেন না। টক দই হজমে কোন সমস্যা করেনা। টক দই এর আমিষ দুধের চেয়ে সহজে হজম হয়। এর ব্যাক্টেরিয়া পাকস্থলির জ্বালাপোড়া কমাতে সাহায্য করে। তাই হজম সমস্যা রোধে টক দই বেশ উপকারী।

৮। মৌরি

অতিরক্ত ঝাল বা মশলাদার খাবারের কারনে বদহজম হলে সেক্ষেত্রে মৌরি দানা বেশ উপকারী। মৌরি তে প্রাকৃতিক তেল থাকে যা পেটের সমস্যা দূর করে। মোটামুটি সবার বাসাতেই অথবা যেকোন মশলার দোকানে মৌরি পাওয়া যায়। খেতে একটু মিষ্টি স্বাদের এই মশলা টি। মৌরি দানা  ভালো করে চিবিয়ে খেয়ে ফেললে তা কাজ করে দ্রুত। এছারাও মৌরি ভেজে গুড়া করে পানির সাথে মিশিয়ে ২ বার পান করা যেতে পারে। নিয়মিত খেলে হজমে আর সমস্যা হবেনা এবং স্বাস্থ ও ভালো থাকবে।

৯। ইসবগুলের শরবত

দীর্ঘমেয়াদি হজমের সমস্যা সমাধানের জন্য অত্যন্ত প্রচলিত একটি পদ্ধতি হলো ইসবগুলের সরবত খাওয়া। ইসবগুলের সরবত খেলে পেট ঠান্ডা থাকে এবং হজম প্রক্রিয়া স্বাভাবিক হয়।

যেনে নিন ইসবগুলের সরবত তৈরি ও খাওয়ার নিয়ম- ১ টেবিল চামচ ইসবগুল ও এক গ্লাস হালকা গরম পানি পানিতে ইসবগুল ভালো করে মিশিয়ে নিন। রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে প্রতিদিন এভাবে সরবত বানিয়ে খেয়ে নিন। কয়েকদিনের মধ্যেই হজমের সমস্যা দূর হয়ে যাবে।