1268 বছরের প্রথম কার্যদিবসে ঊর্ধ্বমুখী শেয়ারবাজার

সোমবার, ৮ আগস্ট ২০২২ । ২৪ শ্রাবণ ১৪২৯ । ৯ মহররম ১৪৪৪

বছরের প্রথম কার্যদিবসে ঊর্ধ্বমুখী শেয়ারবাজার

বছরের প্রথম কার্যদিবসে ঊর্ধ্বমুখী শেয়ারবাজার

নিউজডেস্ক২৪: নতুন বছরে ইতিবাচক ধারায় শুরু হয়েছে শেয়ারবাজারের যাত্রা। অধিকাংশ কোম্পানির শেয়ার দর, মূল্য সূচক, সর্বপরি শেয়ার কেনাবেচার পরিমাণে তুলনামূলক ঊর্ধ্বমুখী ধারায় চলছে বছরের প্রথম কার্যদিবস রোববারের লেনদেন।

তবে লেনদেনের প্রথম দুই ঘণ্টায় অল্প কিছু কোম্পানির শেয়ার ছাড়া সিংহভাগ শেয়ারের দর বৃদ্ধি ১ থেকে ৩ শতাংশে সীমাবদ্ধ ছিল। অর্থাৎ আগ্রাসী শেয়ার কেনার প্রবণতা কম, বিনিয়োগে সতর্কতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। 

প্রথম দুই ঘণ্টার লেনদেন শেষে দুপুর ১২টায় প্রধান শেয়ারবাজার ডিএসইর ৩৬৮ কোম্পানির শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে ২৬৫টিকে দর বেড়ে কেনাবেচা হতে দেখা গেছে। সিংহভাগ কোম্পানির শেয়ার দরই ১ থেকে ৩ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়ে কেনাবেচা হচ্ছিল।

দর হারিয়ে কেনাবেচা হচ্ছিল ৬৯টি শেয়ার এবং দর অপরিবর্তিত অবস্থায় ছিল ৩৪টি।

অধিকাংশ শেয়ারের দর বৃদ্ধির বেশ ভালো প্রভাব ছিল মূল্য সূচকে। প্রধান সূচক ডিএসইএক্স এ সময় ৬৩ পয়েন্ট বেড়ে ৬৮১৯ পয়েন্টে অবস্থান করছিল। যদিও লেনদেনের প্রথম এক ঘণ্টা ১০ মিনিট পর সূচকটি ৬৮৪১ পয়েন্ট ছাড়িয়েছিল।

সূচককে ঊর্ধ্বমুখী করতে সর্বাধিক ভূমিকা রাখছে বেক্সিমকো লিমিটেডের শেয়ার। এ সময় কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি দর ৫ টাকা ৬০ পয়সা বাড়ায় ডিএসইএক্সে যোগ করেছিল ১৩ পয়েন্ট।

এছাড়া বেক্সিমকো ফার্মার শেয়ার প্রতি দর ৪ টাকা ৭০ পয়সা বাড়ায় যোগ করেছিল পৌনে ৬ পয়েন্ট। ব্রিটিশ আমেরিকান টোবাকো বাংলাদেশের শেয়ার দর বৃদ্ধি ৫ পয়েন্ট, ফরচুন সুজের শেয়ার দর বৃদ্ধি পৌনে ৪ পয়েন্ট যোগ করেছিল। লাফার্জ-হোলসিম, আইএফআইসি ব্যাংক এবং বাংলাদেশ শিপিং করপোরেশনের শেয়ার দর বৃদ্ধিও ২ পয়েন্ট করে সূচক বাড়িয়েছে।

তবে ৫ থেকে ১০ শতাংশ দর বৃদ্ধি নিয়ে যে দশ কোম্পানি শীর্ষ তালিকায় অবস্থান করছিল, তার মধ্যে বাংলাদেশ শিপিং করপোরেশন ছাড়া ভালো মৌলভিত্তির কোনো শেয়ার দেখা যায়নি।

আরএন স্পিনিংয়ের শেয়ার ১০ শতাংশ বেড়ে ৬ টাকা ৬০ পয়সা দরে কেনাবেচা হচ্ছিল। তবে বিক্রেতার অভাবে শেয়ারটির কেনাবেচা থমকে ছিল।

দর বৃদ্ধির দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা বাংলাদেশ শিপিং করপোরেশনের শেয়ার সাড়ে ৯ শতাংশ বেড়ে ৭৮ টাকা ৭০ পয়সায় কেনাবেচা হতে দেখা গেছে।

প্রায় ১০ শতাংশ দর বৃদ্ধি নিয়ে এর পরের অবস্থানে ছিল ফরচুন সুজ। গত বছরই এপ্রিল থেকে অক্টোবরের মধ্যে শেয়ারটির দর ১৬ টাকা থেকে ১২১ টাকা ছাড়িয়েছিল। রোববার সার্কিট ব্রেকারের সর্বোচ্চ দর ১০১ টাকায় কেনাবেচা হচ্ছে শেয়ারটি।

বিপরীতে ৫ শতাংশের ওপর দর হারিয়ে দরপতনের শীর্ষে ছিল ডেফোডিল কম্পিউটার্সের শেয়ার। সোনালী পেপার এবং এটলাশ বাংলাদেশের শেয়ার ৩ শতাংশের ওপর দর হারিয়ে ছিল এর পরের অবস্থানে।

খাতওয়ারি লেনদেন পর্যালোচনায় দেখা গেছে, রোববার লেনদেনের প্রথম দুই ঘণ্টা পর্যন্ত সব খাতের অধিকাংশ শেয়ারের দর বেড়ে কেনাবেচা হতে দেখা গেছে।

প্রথম দুই ঘণ্টায় ৩৫৯ কোটি টাকার শেয়ার কেনাবেচা হয়েছে। এরমধ্যে বেক্সিমকো লিমিটেড, ফরচুন সুজ এবং বাংলাদেশ শিপিং করপোরেশনের শেয়ার কেনাবেচা ছিল ১৩৫ কোটি টাকার।