হোয়াইট হাউজে ‘সিএনএন’ সাংবাদিক নিষিদ্ধ

হোয়াইট হাউজে ‘সিএনএন’ সাংবাদিক নিষিদ্ধ

নিউজডেস্ক২৪: মার্কিন গণমাধ্যম সিএনএন’র সাংবাদিক জিম একস্তা’র হোয়াইট হাউজে প্রবেশের ওপর নিষেধাজ্ঞা আনলেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ল্যাটিন আমেরিকা থেকে যুক্তরাষ্ট্র অভিমুখী অভিবাসী ক্যারাভান নিয়ে একটি সংবাদ সম্মেলনে তর্কে জড়িয়ে পড়েন সাংবাদিক জিম একস্তা এবং প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এরপরই সাংবাদিক জিম একস্তার হোয়াইট হাউজের প্রেস পাস স্থগিত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে হোয়াইট হাউজ। খবর আল জাজিরার।

যুক্তরাষ্ট্র অভিমুখী অভিবাসী ক্যারাভান নিয়ে ওই সংবাদ সম্মেলনে একটি প্রশ্ন করার পর আরেকটি প্রশ্ন করার সময় জিম একস্তাকে থামিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, যথেষ্ট হয়েছে। এরপরই সাংবাদিকের হাত থেকে মাইক্রোফোন কেড়ে নেয় হোয়াইট হাউজের এক তরুণ শিক্ষানবিশ নারী কর্মী।

সাংবাদিক জিম একস্তার হোয়াইট হাউজের প্রেস পাস স্থগিত করার বিষয়ে হোয়াইট হাউজের প্রেস সচিব সারাহ স্যান্ডার্স একটি বিবৃতিতে বলেন, জিম একস্তা একজন হোয়াইট হাউজের শিক্ষানবিশ তরুণ কর্মীর ওপর হাত তুলেছেন যিনি তার দায়িত্ব পালন করছিলেন, যেটা পুরোপুরি অগ্রহণযোগ্য। তবে আল জাজিরা বলছে মাইক্রোফোন কেড়ে নেয়ার সময় হোয়াইট হাউজের ওই কর্মী এবং একস্তার মধ্যে খুব সামান্য ধস্তাধস্তি হয় এবং যখন ওই কর্মী মাইক্রোফোন কেড়ে নিতে নেয় তখন একস্তা ওই কর্মী হাতে ধাক্কা দিয়ে সরিয়ে দেয়। পরে অবশ্য এর জন্য ক্ষমা চেয়েছিলেন একস্তা।

এদিকে হোয়াইট হাউজের বিবৃতি দেয়ার পর একটি টুইট বার্তায় নিজের প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন সাংবাদিক জিম একস্তা। টুইট বার্তায় তিনি লেখেন, ওই কর্মীর ওপর হাত তোলার ঘটনা মিথ্যা।

এ ঘটনা নিয়ে এক বিবৃতিতে সংবাদ মাধ্যম সিএনএন বলছে জিম একস্তার চ্যালেঞ্জিং প্রশ্নের কারণে একস্তার হোয়াইট হাউজের প্রেস পাসটি বাতিল বুধবার করা হয়েছে। এ ছাড়া স্যান্ডার্সের করা অভিযোগটিও সম্পূর্ণ মিথ্যা।

সিএনএন ওই বিবৃতিতে বলে, স্যান্ডার্স একটি প্রতারণাপূর্ণ অভিযোগ এনেছে এবং এমন একটি ঘটনার কথা বলেছে যেটি কখনো ঘটেনি। এই ধরনের অভূতপূর্ব সিদ্ধান্ত আমাদের গণতন্ত্রের জন্য হুমকি এবং আমাদের এর থেকে দেশ আরো ভাল পাওয়ার যোগ্য।

প্রসঙ্গত, গত জুলাই মাসে অনুপযুক্ত প্রশ্ন করায় যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক টেলিভিশন চ্যানেল সিএনএন’র আরেক সাংবাদিক কেইটলান কলিন্সকে নিষিদ্ধ করেছিল হোয়াইট হাউজ।