বইমেলায় আলতামিশ নাবিলের ‘মহারাজা তোমারে সেলাম’

বইমেলায় আলতামিশ নাবিলের ‘মহারাজা তোমারে সেলাম’

নিউজডেস্ক২৪: বাংলা ভাষার ছবিকে যিনি নিয়ে গেছেন অন্য এক উচ্চতায় তিনি কিংবদন্তী চলচ্চিত্রকার সত্যজিৎ রায়। তাঁর সমগ্র কর্ম-জীবনের স্বীকৃতি হিসেবে তিনি একাডেমি সম্মানসূচক পুরস্কার অস্কারও অর্জন করেছেন।

সত্যজিৎ রায়ের পিতা সুকুমার রায় ও পিতামহ উপেন্দ্রকিশোর রায়চৌধুরী জন্মেছিলেন বাংলাদেশের কিশোরগঞ্জ জেলার কটিয়াদী উপজেলার মসূয়া গ্রামে। তাই জন্মসূত্রে বাংলাদেশী এই মানুষটির মহৎ সৃষ্টিগুলো নিয়ে আমাদের জানার আগ্রহ বিপুল। সত্যজিৎ রায়ের চলচ্চিত্রকর্মের উপর লেখক মুহাম্মাদ আলতামিশ নাবিল রচিত গবেষণাগ্রন্থ ‘মহারাজা তোমারে সেলাম’ প্রকাশিত হয়েছে এবারের ঢাকা মহান একুশে বইমেলা ২০১৯ এ। বইটি প্রকাশিত হয়েছে কবি প্রকাশনী থেকে (সোহরাওয়ার্দী উদ্যান, স্টল নং ২১৪-২১৫)।

বইটি সম্পর্কে লেখক আলতামিশ নাবিল জানান, “সত্যজিৎ রায়ের সাথে আমার পরিচয় ছোটবেলায় সেই ডিডি বাংলায় হীরক রাজার দেশে দেখার মাধ্যমে। গুপী-বাঘাকে ভূতের রাজার দেয়া বর-গুলো দিয়ে তারা যেমন মানুষকে মোহাবিষ্ট করে রাখতে পারতো, একজন চলচ্চিত্রকারের নিজেরও তেমন দর্শকদের মোহাবিষ্ট করার ক্ষমতা আছে। সত্যজিৎ রায়ের ক্ষেত্রে সেই মোহ তৈরির বিষয়টা অনেক বেশী তড়িৎ। ইতিহাস, সাহিত্য, রম্য, রোমাঞ্চ, ভ্রমন, ফ্যান্টাসি... কি নেই সত্যজিৎ রায়ের ছবিগুলোতে। কিন্তু এইচডি, ব্লরের ফাঁক গলে সত্যজিৎ রায়ের কালজয়ী চলচ্চিত্রগুলো তরুণ প্রজন্মের কাছে কতদূর পৌঁছেছে তা নিয়ে আমার বিস্তর সন্দেহ আছে। বইটি লেখার মূখ্য উদ্দেশ্য, সত্যজিৎ রায়ের চলচ্চিত্ররস আস্বাদনের দিকগুলোকে এই নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরা।’’

চলচ্চিত্র পরিচালকের বাইরে তিনি একজন লেখক, চিত্রনাট্যকার, সাহিত্যিক, সঙ্গীত পরিচালক ও গীতিকার। তবে মহারাজা তোমারে সেলাম বইটিতে মূলত সত্যজিতের চলচ্চিত্র পরিচালনার দিকটিকে আলোকপাত করা হয়েছে। বইটির লেখক আলতামিশ নাবিল নিয়মিত লেখালেখি ও প্রামাণ্য চলচ্চিত্র নির্মানের পাশাপাশি বর্তমানে কর্মরত আছেন ডিজিটাল সার্ভিস বিশেষজ্ঞ হিসেবে একটি বহুজাতিক কোম্পানিতে। এটিই লেখকের প্রকাশিত প্রথম বই।

বইটির মূল্য ১৫০ টাকা ও এর প্রচ্ছদ একেছেন সাজ্জাদুল ইসলাম সায়েম। বইমেলার প্রথম দিন থেকেই পাওয়া যাচ্ছে বইটি, এছাড়াও পাওয়া যাচ্ছে রকমারীডটকম সহ সকল দেশের প্রধান বইঘরগুলোতেও। এছাড়াও ভারতের পশ্চিমবঙ্গে বইটির প্রকাশক অভিযান পাবলিশার্স।

বইটি সম্পর্কেঃ

মহারাজা তোমারে সেলাম। এই মহারাজাটি আর কেউ নয়, বাংলা ছবিকে যিনি নিয়ে গেছেন অন্য এক উচ্চতায় সেই সত্যজিৎ রায়। তাঁর সমগ্র কর্ম-জীবনের স্বীকৃতি হিসেবে তিনি একাডেমি সম্মানসূচক পুরস্কার অস্কারও অর্জন করেছেন। সত্যজিৎ রায়ের পিতা সুকুমার রায় ও পিতামহ উপেন্দ্রকিশোর রায়চৌধুরী জন্মেছিলেন বাংলাদেশের কিশোরগঞ্জ জেলার কটিয়াদী উপজেলার মসূয়া গ্রামে। তাই জন্মসূত্রে বাংলাদেশী এই মানুষটির মহৎ সৃষ্টিগুলো নিয়ে আমাদের জানার আগ্রহ বিপুল। মহারাজা তোমারে সেলাম গ্রন্থটি সেই বিপুল আগ্রহকে মেটানোর প্রয়াসে লেখা। গ্রন্থটির রচয়িতা মুহাম্মাদ আলতামিশ নাবিল সত্যজিৎ-এর কালোত্তীর্ণ সৃষ্টিগুলো নিয়ে বেশ বিস্তারিতভাবে লিখেছেন এই গ্রন্থে। সত্যজিৎকে নিয়ে প্রায় গবেষণা ঢংয়ে লেখা বইটিতে সত্যজিৎ নির্মিত ফেলুদা সিরিজের প্রথম দু’টি ছবি ‘সোনার কেল্লা’ ও ‘জয়বাবা ফেলুনাথ’ সম্পর্কে তথ্যসহ সিরিজের অন্যান্য নির্মাণ নিয়েও বিশদ বলেছেন লেখক। অপু ত্রয়ী চলচ্চিত্র নিয়ে লেখা হয়েছে অপুর পাঁচালী। গ্রন্থের এই সংযোজনাটিতে সত্যজিৎ রায় কীভাবে রেঁনোয়া এবং ভিত্তোরিয় ডি সিকা দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়ে ছবি নির্মাণে ব্রত হলেন তা বর্ণিত হয়েছে সাথে অপু ত্রয়ীর তিনটি ছবি, পথের পাঁচালী, অপরাজিত এবং অপুর সংসার নিয়ে আছে সবিস্তারে আলোচনা যা ভবিষ্যতের গবেষকদের জন্যেও রাখবে সহায়ক ভূমিকা। কাঞ্চনজঙ্ঘা, দেবী, অশনি সংকেত, পরশ পাথর, গুপি বাঘা, কাপুরুষ, মহাপুরুষ, অরণ্যের দিনরাত্রি, নায়ক, সতরাঞ্জ কি খিলাড়ি, আগন্তুকসহ সত্যজিৎ-এর প্রায় সবগুলো ছবিগুলো নিয়ে বিস্তারিত লেখাগুলো সত্যজিৎকে নিয়ে পাঠকের জানার আগ্রহ মেটাতে সাহায্য করবে। রবি ঠাকুর বা তারাশঙ্কর বন্দোপাধ্যায়ের উপন্যাস থেকে নির্মিত চলচ্চিত্র সম্পর্কে এই গ্রন্থে সংযোজিত আলোচনা আমাদের সামনে অন্য এক সত্যজিৎকে তুলে ধরে। এখানে আলোচিত হয়েছে; জলসাঘর, অভিযান, তিনকন্যা, চারুলতা শিরোনামের ছবিগুলো। আলোচিত হয়েছে সত্যজিৎ রায় নির্মিত প্রামান্যচিত্র, স্বল্পদৈর্ঘ ও টিভি প্রযোজনা নিয়েও। এক কথায় ‘মহারাজা তোমারে সেলাম’ গ্রন্থটিকে ‘সত্যজিৎ চলচ্চিত্র সমগ্র’ বললেও ভুল বলা হবে না। সত্যজিৎ রায়ের সমাজ ও রাজনৈতিক ভাবনা, চলচ্চিত্র ভাবনা ও বিশ্লেষণী ক্ষমতা সম্পর্কে সম্যক ধারণা লাভ করে বাঙালি পাঠকেরা আরো বেশী সত্যজিৎ ভক্ত হয়ে পড়বেন গ্রন্থটি পাঠ করে।