হাঁপানির কষ্ট নিরাময়ে কিছু ঘরোয়া উপায়

হাঁপানির কষ্ট নিরাময়ে কিছু ঘরোয়া উপায়

নিউজডেস্ক২৪: শুধু শীতকাল বা বর্ষাকালেই নয়, আবহাওয়ার পরিবর্তনের ফলে বছরের যে কোনও সময়েই হাঁপানি সমস্যা বাড়তে পারে। এই রোগ বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই বংশগত। ইদানীংকালের মাত্রাতিরিক্ত দূষণের ফলে অনেকের মধ্যেই বাড়ছে হাঁপানির সমস্যা।

আসলে আমাদের ফুসফুসে অক্সিজেন বহনকারী অজস্র সরু সরু নালী পথ রয়েছে। অ্যালার্জি, ধুলা বা অন্যান্য কারণে শ্বাসনালীর পেশি ফুলে উঠলে অক্সিজেন বহনকারী এই সব নালী পথগুলো সঙ্কুচিত হয়ে পড়ে। ফলে আমাদের শরীরে পর্যাপ্ত অক্সিজেন পৌঁছায় না আর তা থেকেই নিঃশ্বাসের কষ্টসহ নানা সমস্যা শুরু হয়। আসুন এবার জেনে নেওয়া যাক হাঁপানির সমস্যার উপশমে কয়েকটি কার্যকরী ঘরোয়া উপায়-

মধু

হাঁপানি সমস্যা নিরাময়ের ক্ষেত্রে অন্যতম সেরা টোটকা হল মধু। বিশেষজ্ঞদের মতে, রোজ রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে ১ চামচ মধুর সঙ্গে সামান্য দারচিনির গুঁড়া মিশিয়ে নিয়ে খেতে পারলে শ্বাসকষ্ট অনেকটাই কমে যাবে। হাঁপানি ছাড়া সর্দি-কাশিতেও এই মিশ্রণ অত্যন্ত কার্যকরী।

আদা

পানির মধ্যে এক টুকরা আদা ফেলে কিছুক্ষণ ফুটিয়ে নিন। এবার এই মিশ্রণ সামান্য ঠাণ্ডা করে খেয়ে নিন। শুধু হাঁপানি নয়, সর্দি-কাশির সমস্যাতেও আদার রস খুবই উপকারী।

রসুন

এক কাপ দুধের মধ্যে ৪ কোয়া রসুন ফেলে ফুটিয়ে নিন। কিছুটা ঠাণ্ডা করে ওই রসুন-দুধের মিশ্রণ খেয়ে নিন। ফুসফুসের যে কোনও রোগ নিরাময়ে এই টোটকা খুবই উপকারী।

পানিত লেবু

পাতি লেবুর রসে রয়েছে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন সি এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। ১ গ্লাস পানির মধ্যে একটা গোটা পাতি লেবুর রস আর সামান্য চিনি দিয়ে রোজ খেতে পারলে হাঁপানির কষ্ট অনেকটাই কমে যাবে।

পেঁয়াজ

পেঁয়াজ আমাদের নাসাপথকে পরিষ্কার রাখতে সাহায্য করে। শ্বাসকষ্ট দূর করতে কাঁটা পেঁয়াজ খেয়ে দেখতে পারেন।

ল্যাভেন্ডার তেল

হাঁপানি সমস্যা নিরাময়ের ক্ষেত্রে ল্যাভেন্ডার তেল খুবই কার্যকরী। ১ কাপ গরম পানির মধ্যে ৫ থেকে ৬ ফোঁটা ল্যাভেন্ডার তেল ফেলে ধীরে ধীরে ভেপার (ভাপ) নিন। দ্রুত উপকার পাবেন।

উল্লেখিত উপায়গুলো আধুনিক চিকিত্সাশাস্ত্রে পরীক্ষিত নয়। এগুলো দীর্ঘদিন ধরে ব্যবহৃত ঘরোয়া টোটকা মাত্র যা আপনাকে এই সমস্যা থেকে সাময়িকভাবে মুক্তি দিতে পারে। তাই হাঁপানির সমস্যায় যখন তখন ওষুধ না খেয়ে চিকিত্সকের পরামর্শ নিন।