বিএসইসির চেয়ারম্যানের পদত্যাগের দাবিতে মানববন্ধন

বিএসইসির চেয়ারম্যানের পদত্যাগের দাবিতে মানববন্ধন

নিউজডেস্ক২৪: পুঁজিবাজারের টানা পতনে বাড়ছে বিনিয়োগকারীদের উৎকণ্ঠা। বাজার স্থিতিশীল হওয়ার লক্ষণ না দেখে বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেছেন তারা। একের পর এক বড় বড় দরপতনে দিশেহারা বিনিয়োগকারীরা রাস্তায় নেমে এসেছেন। টানা চার দিন ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ এলাকায় বিক্ষোভ করছেন। আগের দিন বড় ধরনের পতনের জের ধরে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড একচেঞ্জ কমিশনের চেয়ারম্যান খাইরুল হোসেনের পদত্যাগ দাবি করে বিক্ষোভ করছেন বিনিয়োগকারীরা।

আজ বুধবার (১৭ এপ্রিল) দুপুরে প্রায় দুই ঘণ্টা ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ ভবনের সামনে বিনিয়োগকারীরা অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করেন এবং পুঁজিবাজারে অস্থিরতা নিরসনে, দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়ার দাবি জানান তারা বিক্ষোভ সমাবেশ থেকে বিনিয়োগকারীদের আস্থা ফিরিয়ে আনতে অবিলম্বে বিএসইসির চেয়ারম্যান ড. খায়রুল হোসেনের পদত্যাগ দাবি করা হয়।

সমাবেশে বাংলাদেশ পুজিবাজার বিনিয়োগকারী ঐক্য পরিষদের সভাপতি মিজানুর রশীদ চৌধুরী বলেন, ঊর্ধ্বমুখী শেয়ারবাজারের জন্য এখন বিনিয়োগকারীদের আস্থা সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন। আর এই আস্থা ফিরে আসবে একমাত্র খায়রুল হোসেন পদত্যাগ করলে। যে পর্যন্ত শেয়ারবাজারের নিয়ন্ত্রক সংস্থার চেয়ারম্যান হিসেবে একজন নীতিবান বিনিয়োগবান্ধব মানুষ দায়িত্ব না নেবে, সে পর্যন্ত সাধারন বিনিয়োগকারীদের আস্থা ফিরবে না, তাদের নিরব কান্না শেষ হবে না।

পুঁজিবাজারের বর্তমান বাজার পরিস্থিতিতে দেখা যায়, প্রতিদিনই উধাও হচ্ছে বিনিয়োগকারীদের পুঁজি। হাতেগোনা কিছু প্রতিষ্ঠান ছাড়া একযোগে কমছে তালিকাভুক্ত সব খাতের শেয়ারের দর। এর জের ধরে আশঙ্কাজনকহারে কমে গেছে ডিএসইতে তালিকাভুক্ত প্রতিষ্ঠানগুলোর বাজার মূলধন। গত এক মাসে বাজার মূলধন কমেছে সাড়ে ২৭ হাজার কোটি টাকা। অথচ ২০১৮ সালে পুঁজিবাজারের বৈরী পরিস্থিতির মধ্যেও সারা বছরে বাজার মূলধন কমে সাড়ে ৩৫ হাজার কোটি টাকা।

সাম্প্রতিককালের বাজারচিত্র লক্ষ্য করলে দেখা যায়, গত বছরের মাঝামাঝি সময়ে পুঁজিবাজার কিছুটা স্থিতিশীল ছিল। ফলে তখন বাজারে আসেন নানা শ্রেণির মানুষ। কিন্তু বছরের শেষদিকে নানা ইস্যুতে বাজার পতন শুরু হয়। ফলে বেকায়দায় পড়েন বিনিয়োগকারীরা।

এ পরিস্থিতিতে ধৈর্যহারা হয়ে পড়ছেন বিনিয়োগকারীরা, বাড়ছে ক্ষোভ। ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ হিসেবে গতকাল অস্বাভাবিক দরপতন হলে কোনো উপায়ান্তর না দেখে রাস্তায় নেমে আসেন তারা। বিনিয়োগকারীরা এ পতনের জন্য বিএসইসির সঠিক তদারকি নেই দাবি করে ওই প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান খায়রুল হোসেনের পদত্যাগ চেয়ে ডিএসইর সামনে বিক্ষোভ করেন। তারা ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে বিএসইসি ছেড়ে যাওয়ার আলটিমেটাম দিয়েছেন।