রাবি শিক্ষার্থীকে মারধর: আবারও মহাসড়ক অবরোধ

রাবি শিক্ষার্থীকে মারধর: আবারও মহাসড়ক অবরোধ

নিউজডেস্ক২৪: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষার্থী ফিরোজ আনামকে মারধরের প্রতিবাদে ফের মহাসড়ক অবরোধ করেছে শিক্ষার্থীরা।

আজ শনিবার (১৯ অক্টোবর) সকাল ১০টা থেকে ক্যাম্পাসে মানববন্ধন, মিছিল ও ফের ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ শুরু করেন শিক্ষার্থীরা। সোমবার (২১ অক্টোবর) ও মঙ্গলবার (২২ অক্টোবর) ২০১৯-২০ স্নাতক প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষার কারণে প্রায় তিন ঘণ্টা মহাসড়ক অবরোধের পর ২৪ তারিখ পর্যন্ত আন্দোলন স্থগিত করেন শিক্ষার্থীরা। এছাড়া এর মধ্যে তাদের দাবিগুলো আদায় না হলে ফের আন্দোলনে নামার ঘোষণা দেন তারা।

শুক্রবার (১৮ অক্টোবর) রাতে ভুক্তভোগী ফিরোজ বাদী হয়ে চার জনকে আসামি করে নগরীর মতিহার থানায় হত্যাচেষ্টা মামলা দায়ের করেন। পরে রাতের মধ্যেই বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন মেহেরচণ্ডী এলাকা থেকে তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ।

আটককৃতরা হলেন, নগরীর মির্জাপুর এলাকার খোরশেদের ছেলে পারভেজ, তালাইমারী এলাকার জাহিদ হোসেনের ছেলে রুবেল হোসেন ও শিরোইল এলাকার রাকিব আলীর ছেলে রিফায় হোসেন রাকেশ।

কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে মানববন্ধনে শিক্ষার্থীরা বলেন, ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা প্রদানে প্রশাসন ব্যর্থ হওয়ায় বিভিন্ন সময় ছিনতাইয়ের শিকার হচ্ছে শিক্ষার্থীরা। প্রায়ই ক্যাম্পাসে এ ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেই চলেছে। বারবার দাবি জানানোর পরেও প্রশাসন ক্যাম্পাসে বহিরাগতদের অবাধ প্রবেশ ও চলাচল বন্ধ করতে পারেনি।

এছাড়া তারা আরও বলেন, বহিরাগতরা ক্যাম্পাসে ঢুকে চুরি-ছিনতাই করছে, শিক্ষার্থীদের ধরে ধরে মারছে। শিক্ষার্থীরা তাদের কাছে জিম্মি। অবিলম্বে প্রশাসনকে ক্যাম্পাসের সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিতে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান বক্তারা।

এদিকে একই দাবিতে ক্যাম্পাসে মানববন্ধন করেছে ছাত্রলীগ ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত রংপুর জেলার বদরগঞ্জ উপজেলার শিক্ষার্থীদের সংগঠন বদরগঞ্জ উপজেলা সমিতি। কর্মসূচি থেকে তারা ফিরোজের চিকিৎসাভার বহনের জন্য প্রশাসনের কাছে দাবি করেন। মানববন্ধন শেষে একটি মিছিল নিয়ে ক্যাম্পাসের প্রধান ফটকে অবস্থান নেন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

জানতে চাইলে মতিহার থানার ভারপ্রাপ্ত ওসি হাফিজুর রহমান বলেন, ফিরোজ আনাম নিজে বাদী হয়ে থানায় হত্যাচেষ্টা মামলা দায়ের করেন। ইতোমধ্যে আমরা তিনজনকে আটক করেছি। বাকিদের আটক করতে আমরা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

উল্লেখ্য, শুক্রবার রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টেডিয়াম সংলগ্ন শহীদ হবিবুর রহমান হলের মাঠে ফিরোজকে মারধর করে ছিনতাইকারীরা। গুরুতর অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সে ৮ নম্বর ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।