পুলিশের ওপর হামলায় দুই জঙ্গি আটক

পুলিশের ওপর হামলায় দুই জঙ্গি আটক

নিউজডেস্ক২৪: ঢাকায় পুলিশের ওপর বোমা হামলার ঘটনায় নব্য জেএমবির দুই সদস্যকে আটক করেছে ঢাকা মহানগর পুলিশের জঙ্গিবিরোধী বিশেষ শাখা কাউন্টার টেরোরিজম। আটককৃতরা হলেন জামাল উদ্দিন রফিক ও আনোয়ার হোসেন।

রবিবার রাত সাড়ে নয়টার দিকে রাজধানীর যাত্রাবাড়ীর শনির আখড়া এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় তাদের হেফাজত থেকে চারটি মোবাইল ফোন ও একটি ল্যাপটপ উদ্ধার করা হয়।

সোমবার দুপুরে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে গ্রেপ্তারকৃতদের বরাত দিয়ে ডিএমপির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার মো. মনিরুল ইসলাম বলেন, তারা নব্য জেএমবির সক্রিয় সদস্য এবং ঢাকা শহরে পুলিশের ওপর পাঁচটি স্থানে বোমা হামলার সাথে সরাসরি জড়িত। গ্রেপ্তারকৃত রফিকের নেতৃত্বে ২০১৯ সালের ২৯ এপ্রিল গুলিস্তান, ২৬ মে মালিবাগ, ২৩ জুলাই পল্টন মোড় ও খামারবাড়ি এবং সর্বশেষ ৩১ আগস্ট সাইন্সল্যাব মোড়ে পুলিশের ওপর বোমা হামলা করা হয়।

মনিরুল ইসলাম বলেন, পুলিশের ওপর নিক্ষিপ্ত বোমাগুলো রফিক তার বাড়িতে তৈরি করেছিলেন। জামাল উদ্দিন রফিক এই গ্রুপের নেতা। তিনি খুলনা ইঞ্জিনিয়ারিং ইউনিভার্সিটি থেকে ইঞ্জিনিয়ারিং পাস করা। আর আনোয়ারের পেশা ছিল গাড়িচালক। তিনি পোড়া মবিলের ব্যবসা করতেন। পুলিশের ওপর হামলার পাঁচটি ঘটনায় নেতৃত্ব দেন জামাল উদ্দিন রফিক। যার মধ্যে চারটি ঘটনায় তিনি সরাসরি উপস্থিত ছিলেন।

ডিএমপির এই কর্মকর্তা বলেন, গ্রেপ্তারকৃতরা কালো পোশাক পরে খেলনা অস্ত্র, বোমাসহ সুইসাইডাল ভেস্ট পরে বিভিন্ন উগ্রবাদী কথাবার্তা সম্বলিত একটি ভিডিও ক্লিপ অনলাইনে প্রচার করেন। ভিডিওতে জামাল উদ্দিন রফিক, ফরিদ উদ্দিন রুমি, আব্দুল্লাহ আজমীর এবং আনোয়ার অংশগ্রহণ করেন। বাংলাদেশ পুলিশের মনোবল ভেঙে দেয়াসহ তাদের উগ্রবাদী সংগঠনের সক্ষমতা ও রিক্রুটমেন্ট ত্বরান্বিত করার মাধ্যমে বাংলাদেশকে অস্থিতিশীল রাষ্ট্রে পরিণত করার লক্ষ্যে অনলাইনে ভিডিও ক্লিপ প্রচার করেন।

২০১৯ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর পুলিশের ওপর হামলার ঘটনায় ইতিপূর্বে ফরিদ উদ্দিন রুমি, আব্দুল্লাহ আজমীর, মেহেদী হাসান তামিম, মিশুক খানদের গ্রেপ্তার করে কাউন্টার টেরোরিজম। ওইদিন নারায়ণগঞ্জ তক্কার মোড়ে রফিকের বোমা তৈরির কারখানায় অভিযান পরিচালনা করে তাজা বোমাসহ বিপুল পরিমাণ বিস্ফোরকদ্রব্য ও অন্যান্য সামগ্রী উদ্ধার করা হয়।