ঢাকা, সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ | ০৯ আশ্বিন ১৪২৫ | ১৩ মহররম ১৪৪০

কাইলি জেনার ইনস্টাগ্রামে একটি ছবি পোস্ট করলেই পান লাখো ডলার

কাইলি জেনার ইনস্টাগ্রামে একটি ছবি পোস্ট করলেই পান লাখো ডলার

নিউডেস্ক২৪: সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলোর কল্যাণে তারকাদের উপস্থিতি এখন মানুষের হাতের মুঠোয়। বলতে পারেন আঙুলের ডগায়। তবে এই তারকারা আবার অনেকেই সামাজিক যোগাযোগ  মাধ্যমে ছবি পোস্ট করেই পকেটে পুরেন কাঁড়ি কাঁড়ি অর্থ। ছবি পোস্টের পরেই লাখ ডলার পর্যন্ত আয় করেন তারকারা। তেমনি একজন মার্কিন মডেল কাইলি জেনার।

বিজ্ঞাপন নিয়ে গবেষণা করে, এমন একটি প্রতিষ্ঠান কিছুদিন আগে জানায়, সেলেনা গোমেজ, কাইলি জেনার, রিয়ানা, বিয়ন্স নোলেসের মতো তারকারা সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে শুধু একটি পোস্ট দিয়েই লাখ লাখ ডলার পর্যন্ত আয় করেন। কারণ ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম, টুইটারের মতো সামাজিক মাধ্যমগুলোতে তারকাদের থাকে কোটি কোটি ভক্ত। এর ফলে তাঁদের যেকোনো পোস্ট কয়েক কোটি মানুষের কাছে খুব সহজেই পৌঁছায়।

আরও পড়ুনঃ নগ্ন হয়ে উপস্থাপনায় বিবিসি রিপোর্টারের দুই সাংবাদিক !

এটি যেকোনো পণ্যের প্রচারে অন্যতম বড় মাধ্যমও। আর তা ঘটছেও হরহামেশাই। তারকারা শুধু তো তাঁদের ব্যক্তিগত কাজকর্মের তথ্য হালনাগাদই করেন না, বিভিন্ন পণ্যের দূতিয়ালিও করেন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। আর ওই কাজ করেই এখন অনেকের চেয়ে অনেক বেশি আয় করেন কিম কার্দাশিয়ানের সৎবোন কাইলি জেনার। তিনি তাঁর প্রতি পোস্টের জন্য পান ১ মিলিয়ন বা ১০ লাখ ডলার। আর এটি বাংলাদেশের মুদ্রায় ৮ কোটি টাকার বেশি।

সৌন্দর্যপণ্যের অন্যতম সম্রাজ্ঞী কাইলি জেনার। নানা পণ্যের মডেল হওয়ার কারণে তিনি   ‘বিউটি মুঘল’ নামেও পরিচিত। গত এপ্রিলে ৩০ দিনে ইনস্টাগ্রামে কাইলি জেনার পোস্ট দিয়েছেন ১৫৬টি। এসব পোস্টে পাঠক সম্পৃক্ততা হয়েছে ১৮ কোটি ৬১ লাখের বেশি। এ বছরের ৪ মে পর্যন্ত সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে (ফেসবুক, টুইটার ও ইনস্টাগ্রাম) জেনারের ফলোয়ার ১৫ কোটি ৪৭ লাখের ৭৫ হাজারের বেশি। দিনকে দিন তা বেড়েই চলেছে।

২০১৬ সালে স্ন্যাপচ্যাটে সবচেয়ে বেশি অনুসরণ করা তারকা ছিলেন কাইলি জেনার। ফলোয়ারের দিক থেকে এ বছর তিনি ইনস্টাগ্রামে আছেন সাতে। শুধু ১ এপ্রিলেই ইনস্টাগ্রামে তাঁর ফলোয়ার হয়েছেন ২৫ হাজার ৫৩০ জন। মাত্র ২৫ বছর বয়সে এই মার্কিন মডেল তারকার সম্পদের পরিমাণ ৫ কোটি ডলার। যার অনেকটাই আসে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম থেকে।

কাইলির মূল্যের ধারণা পাওয়া যায় সম্প্রতি তাঁর এক টুইটে। কাইলির এক টুইটে কোটি কোটি ডলারের বাজারমূল্য কমে যায় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ‘স্ন্যাপচ্যাটে’র। টুইটারে কাইলি লেখেন, ‘এমন কেউ কি আছেন, যিনি আর স্ন্যাপচ্যাট ব্যবহার করছেন না? নাকি শুধু আমি একা? আহা এটা খুব দুঃখজনক!’ আর তাঁর এ টুইটে কমে যেতে শুরু করে স্ন্যাপচ্যাটের বাজারমূল্য। কমতে কমতে এক ধাক্কায় ১৩০ কোটি ডলার পর্যন্ত কমে যায় বাজারমূল্য।