ঢাকা, বুধবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮ | ১১ আশ্বিন ১৪২৫ | ১৫ মহররম ১৪৪০

অবশেষে বাদ পড়া ৪৯৪ শিক্ষক এমপিওভুক্ত হচ্ছেন

অবশেষে বাদ পড়া ৪৯৪ শিক্ষক এমপিওভুক্ত হচ্ছেন

নিউজডেস্ক২৪: দীর্ঘদিন ধরে বঞ্চিত স্কুল ও কলেজের তথ্যপ্রযুক্তি, বিজ্ঞান শিক্ষক, চারুকলা এবং শ্রেণি শাখার বাদ পড়া ৪৯৪ জন শিক্ষক নতুন করে এমপিওভুক্ত হওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন। দু-এক দিনের মধ্যেই এমপিওভুক্তির নির্দেশনা দিয়ে আদেশ জারি করতে পারে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।  

মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের (মাউশি) তালিকা অনুযায়ী, গত বছরের ৩১ ডিসেম্বর এসব শিক্ষকদের এমপিওভুক্তির সুযোগ আসে। ওই সময় সাত হাজার ১৪৬ শিক্ষককে এমপিওভুক্ত করে সরকার। কিন্তু বাদ পড়েন এসব শিক্ষকরা। অবশেষে ছয় বছর পর আবার তারা এমপিওভুক্তির সুযোগ পাচ্ছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের যুগ্মসচিব (বেসরকারি মাধ্যমিক) সালমা জাহান বলেন, ‘গত ১ আগস্টের রেজুলেশন অনুযায়ী, বাদ পড়া শিক্ষক ও শ্রেণি শাখার অতিরিক্ত শিক্ষকদের এমপিওভুক্তির আদেশ জারি করতে সব কিছু প্রস্তুত করা হয়েছে। সচিব দেখার পর অনুমতি দিলে আদেশ জারি করা হবে।’

এর আগে মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (বেসরকারি মাধ্যমিক) জাবেদ আহমেদ জানিয়েছিলেন, মাউশির তালিকার বাইরে যদি কেউ বাদ পড়েন তারাও এমপিওভুক্তির সুযোগ পাবেন। মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট শাখা থেকে জানা গেছে, বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, আদেশ জারির বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন। সব কিছু প্রস্তুত করা হয়েছে। সচিব দেখার পর সংশ্লিষ্ট শাখা থেকে যেকোনো সময় আদেশ জারি করা হতে পারে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, অতিরিক্ত শ্রেণি শাখা অনুমোদনের বিপরীতে নিয়োগ দেওয়া শিক্ষকদের ২০১১ সালের ১৩ নভেম্বর পরিপত্র জারি করে এমপিও বন্ধ করে দেয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়। ওই পরিপত্রে বলা হয়েছিল, এমপিও নির্দেশিকা ২০১০ এ যাই থাকুক পুনরায় আদেশ না দেওয়া পর্যন্ত বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের অতিরিক্ত শ্রেণি শাখা বা বিভাগ খোলার ক্ষেত্রে ওইসব বিষয়ের বিপরীতে নিয়োগ দেওয়া শিক্ষকদের বেতন-ভাতা সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে বহন করতে হবে। সরকার এসব শিক্ষকদের বেতন-ভাতা বহন করবে না।

কিন্তু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারীদের বেতন-ভাতার সরকারি অংশ প্রদান সম্পর্কিত ১৯৯৫ সালের জনবল কাঠামো ২০১৩ সালে সংশোধন করে কম্পিউটার বিষয়ের সহকারী শিক্ষক পদটি প্যাটার্নভুক্ত করা হয়। আর ২০১০ সালের শিক্ষানীতি অনুযায়ী, কম্পিউটার বিষয়টি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি নামে সংশোধন করে তা বাধ্যতামূলক করা হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে এবং মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের প্রস্তাবে তথ্যপ্রযুক্তি, বিজ্ঞান ও চারুকলাসহ কয়েকটি বিষয়ের শিক্ষকদের এমপিওভুক্তির সিদ্ধান্ত নেয় মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ।

গত বছরের ৩১ ডিসেম্বর বঞ্চিত তথ্যপ্রযুক্তি, বিজ্ঞান ও উৎপাদন ব্যবস্থাপনাসহ কয়েক বিষয়ের সাত হাজার ১৪৬ শিক্ষককে এমপিওভুক্ত করে সরকার। এ সময় বাদ পড়েন ৪৯৪ জন শিক্ষক। এসব শিক্ষকদের এমপিওভুক্তির বিষয় নিয়ে গত ১ আগস্ট বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. সোহরাব হোসাইনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে এসব শিক্ষকদের এমপিওভুক্ত করতে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

ওই বৈঠকে ডিগ্রিস্তরের ৪৩৫ জন তৃতীয় শিক্ষককে এমপিওভুক্তির নির্দেশ দিয়ে গত ২৮ আগস্ট আদেশ জারি করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।